মন্ত্রী হচ্ছেন মাশরাফি!


প্রকাশিত:
২ জানুয়ারী ২০১৯ ১৮:৫৩

Print Friendly and PDF

নড়াইল এক্সপ্রেসখ্যাত ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মর্তুজা জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচতি হয়েছেন। রাজনীতির মাঠে নেমেই ছক্কা হাঁকিয়ে বিশাল জয় ছিনিয়ে নিয়েছেন। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার চমকের মধ্যে অন্যতম ছিল মাশরাফির সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ। তাই সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মাশরাফিকে মন্ত্রীসভার অন্তর্ভূক্ত করে আরও একটি চমক দিতে পারেন প্রধানমন্ত্রী।

তাই মাশরাফিকে নিয়ে এখন নতুন স্বপ্ন দেখছে নড়াইলবাসী। তাদের প্রত্যাশা, প্রধানমন্ত্রী মাশরাফিকে মন্ত্রিসভায় স্থান দিয়ে আরেকটি উদাহরণ সৃষ্টি করবেন। তারা মনে করেন, তারুণ্যের প্রতীক মাশরাফি দলমত নির্বিশেষে সবার জন্য কাজ করবেন। নড়াইল জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন খান নিলু বলেন, আওয়ামী লীগ ছাড়াও দলমত নির্বিশেষে মানুষ মাশরাফিকে ভালবাসে এবং প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের সঙ্গে একাত্ম হয়েই মানুষ নৌকায় ভোট দিয়েছেন। শুধু নড়াইলের নয়, মাশরাফি দেশের তরুণ সমাজ এবং খেলাধুলার উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখতে পারবেন।

তবে মন্ত্রী হওয়ার বিষয়টি মাশরাফির ব্যক্তিগত ইচ্ছার ওপর কিছুটা নির্ভর করছে। কারণ মাশরাফি খেলার মাঠে আরও কিছু সময় দিতে চান। এটি তার ইচ্ছে। সেটি নির্বাচনের আগেও দেখা গেছে। দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার পরও পূর্ব নির্ধারিত সিরিজ থাকায় খেলা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। খেলা শেষ করে নড়াইলে নির্বাচনী কার্যক্রম শুরু করেন ২০ ডিসেম্বর সুধাসদন থেকে প্রধানমন্ত্রীর পাশে থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভোট চেয়ে। সেক্ষেত্রে হয়ত শেষ পর্যন্ত মন্ত্রী সভায় দেখা নাও যেতে পারেন। তবে প্রধানমন্ত্রী তাকে মন্ত্রীসভায় ডাকলে তিনি সরাসরি নিষেধ করবেন না। এমন ইঙ্গিত তিনি মিডিয়াকে ইতিমধ্যেই দিয়েছন। এ প্রসঙ্গে গত সোমবার মাশরাফি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছায় আমি সংসদ সদস্য হয়েছি। তিনি যে দায়িত্ব দেবেন সেটাই আমি আন্তরিকতার সঙ্গে পালন করব।

নড়াইল-২ (লোহাগড়া-সদরের একাংশ) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মাশরাফি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন বিপুল ভোটের ব্যবধানে। নৌকা প্রতীকে তিনি পেয়েছেন দুই লাখ ৭১ হাজার ২১০ ভোট।

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী এনপিপির চেয়ারম্যান ফরিদুজ্জামান ফরহাদ ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন সাত হাজার ৮৮৩ ভোট। দু'জনের ভোটের ব্যবধান ২ লাখ ৬৩ হাজার ৩২৭। নড়াইলের ইতিহাসে এত বেশি ব্যবধানের বিজয় আর কেউ পাননি। জাতীয় ওয়ানডে ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি খেলার মাঠের পাশাপাশি রাজনীতির মাঠেও নিজের কারিশমা দেখিয়েছেন।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একান্ত ইচ্ছায় নড়াইল-২ আসন থেকে নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নেন মাশরাফি। গত ২০ ডিসেম্বর লোহাগড়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ঢাকা থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এক নির্বাচনী জনসভায় শেখ হাসিনা বলেন, 'মাশরাফি একটা হীরের টুকরো। সেই হীরের টুকরোকেই আমি আপনাদের উপহার দিলাম।'

সেজন্যই হয়তো আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মী, মাশরাফির সমর্থক, ভক্তসহ লাখো মানুষ আশা দেখেন আগামী মন্ত্রী পরিষদে মাশরাফিকে মন্ত্রীত্বের আসনে বসাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

কান্ট্রিনিউজ২৪/এমএস