১১ জন পেল গুনিজন সম্মাননা

অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানে সমাপ্তি তিনদিনের কাব্য বিলাস নাট্য উৎসব


প্রকাশিত:
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ০১:৪৬

Print Friendly and PDF

‘মনের আয়না দেখতে নাটক হল পথ’ এ স্লোগানে শেষ হল কাব্য বিলাস নাট্য উৎসব ২০১৯। দশটি দলের অংশগ্রহণ ও গুনীজনের সম্মাননা প্রদানের মধ্য দিয়ে পর্দা নামল তিনদিন ব্যাপী নাট্য উৎসবের। দেশের অন্যতম শিশু-কিশোর নাট্য সংগঠন কাব্য বিলাস নাট্যগোষ্ঠী নিজেদের ১২ বছরপূর্তি উপলক্ষে ঢাকার ১০টি দলের নাটক নিয়ে আয়োজন করেছে এ সাংস্কৃতিক উৎসব।

গত ২১ ফেব্রুয়ারি চিত্রাঙ্কণ প্রতিযোগিতা ও পথনাটক দিয়ে শুরু হয়ে ২৩ ফেব্রুয়ারি মন বিলাস নাট্য দলের নাটক ফুঁ দিয়ে শেষ হয় কাব্য বিলাস নাট্য উৎসব।

রাজধানীর দক্ষিণখানের কাওলায় কাব্য বিলাস নাট্য উৎসবে মুগ্ধ হয় দর্শকেরা।
উৎসবে ঢাকার ১০ দলের ১০টি নাটক পরিবেশন হয়। সেই সাথে এগারো জন গুণী ব্যক্তিকে ১১ বিভাগে 'গুণীজন সম্মাননা' জানানো হয়।

উৎসবে যারা অংশগ্রহণ করে-থিয়েটার ভুবন, উত্তরা, কুসুমকলি থিয়েটার, নাট্যভূমি, মন বিলাস নাট্য দল, নন্দন (নাট্য সংগঠন), আইডিয়াল থিয়েটার, মাইম আর্ট ইউনিট, কাব্য বিলাস নাট্য গোষ্ঠী, প্রত্যাশা নাট্য দল, হিড়িক নাট্য গোষ্ঠী ও রূপান্তর নাট্য দল নাটক প্রদর্শন করে।
এছাড়া নাট্য উন্নয়নে সম্মেলিত সাংস্কৃতিক জোট উত্তরার সভাপতি মিজানুর রহমান, সাংস্কৃতিক কর্মকা-ে স্বাধীনতা সাংস্কৃতিক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আসলাম শিহির, সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে গীতাঞ্জলি ললিতকলা একাডেমীর পরিচালক মাহবুব আমিন মিঠু, মানবাধিকার রক্ষায় জাপান-বাংলাদেশ হিউমেন্স রাইটস্ এর মহা সচিব আমিনুল ইসলাম, আবাসন উন্নয়নে জীবন কৃষ্ণ সাহা, কৃষি রপ্তানিতে ড. মোঃ রফিকুল ইসলাম লিটন (সিআইপি), সাংবাদিকতায় আবুল কালাম আজাদ, কাব্য বিলাস নাট্যগোষ্ঠী উন্নয়নে খুকু বিশ্বাস ও শিক্ষায় অবদানে মিজানুর রহমান ভূইয়াকে বিশেষ সম্মাননা স্মারক দেয়া হয়।

দলের পক্ষে দল নেতা মুসা আহম্মেদ জানান, কাব্য বিলাস ২০০৪ সালের ৮ মে প্রতিভার প্রতিক্ষায় নতুনের জয় গান এই স্লোগানে নাট্যচর্চা শুরু করে। ১৩ বছরের এই পথ চলায় এটা কাব্য বিলাস এর পঞ্চম নাট্য উৎসব। যুব সমাজকে মাদক থেকে দূরে রাখতে নাটক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। আগামীতেও এমন নাট্য উৎসব আয়োজনের চেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

স/ রা/ রা