প্রথম ছুটির দিনে মেলায় উপচেপড়া ভিড়


১১ জানুয়ারী ২০১৯ ২১:০৪

আপডেট:
১১ জানুয়ারী ২০১৯ ২২:১০

আলিফ হোসেন রিফাত

রাজধানীর চন্দ্রীমা উদ্যান থেকে লোকজন সারিবদ্ধভাবে যাচ্ছে। যেন লোকের স্রোত বইছে। শিশু থেকে শুরু করে বয়স্করাও আছেন। এ জনস্রোত গিয়ে মিলেছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা প্রাঙ্গণে। আজ শুক্রবার মেলার প্রথম ছুটির দিন হওয়া মেলা প্রাঙ্গণ ভরেছিলো কানায় কানায়।

মেলায় দর্শনার্থী বাড়লেও আয়োজকারী সরকারি প্রতিষ্ঠান রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি)দুর্বলতার কারণে এখনও অনেক কাজ বাকি রয়েছে।  

মেলা ঘুরে দেখা গেছে, এখনও কাজ চলছে অনেক স্টলের। মানুষের ভিড় ঠেলে স্টল তৈরির মালামাল নিয়ে যেতে দেখা গেছে। এতে দর্শনার্থীদের অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। অনেকে এটাতে বিরুক্ত হয়ে বলেন, এটা কি আন্তর্জাতিক মেলা?

এ বিষয়ে ইপিবি’র কর্মকর্তা ও মেলার সদস্য সচিব আব্দুর রউফের সাথে কথা বলার জন্য তার ফোনে কয়েক বার ফোন দিয়েও পাওয়া যায়নি।

মেলার দর্শনার্থীরা কেউ এসেছেন প্রাইভেটকারে, কেউ আটোরিকশায়, কেউ মোটরসাইকেল যোগে, কেউ বা আবার বাস যোগে। কেউ এসেছেন বন্ধুদের নিয়ে কেউ বা আবার পরিবারের সবাইকে নিয়ে।

রাজধানীর মিরপুর থেকে ঘুরতে আসা আবুল কালামের সাঙ্গে কথা হয় কান্ট্রিনিউজের প্রতিনিধির। তিনি জানান, মেলাকে নিয়ে প্রতিবছর আমার একটা পরিকল্পনা থাকে। আর এটা আমি কয়েক বছর থেকে করে আসছি। সেটা হচ্ছে মেলায় কেনাকাটাসহ পরিবারকে নিয়ে ঘুরতে আসা। তবে এবারে জ্যামের কথা চিন্তা করে শুরুর দিকেই চলে এসেছি। আজ কিছু কেনাকাটা করবো আর বাকি কেনাকাটা অন্য কোন সপ্তাহে করব।

আবুল কালাম বলেন, মেলায় শুধু কেনাকাটা করতে আসি না। এখানে বিনোদনেরও বিষয় আছে।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ের শের-ই-বাংলা নগরে ২৪তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় জুট ডাইভারসিফিকেশন প্রমোশন সেন্টারের (জিডিপিসি) প্যাভিলিয়নে রয়েছে বাহারি পাট পণ্যের সমাহার। পাট থেকে যে নানা জাতে বাহিরা পণ্য তৈরি হয় তা এ প্যাভিলিয়নে আসে বুঝা যায়। এসব পণ্যের মধ্যে রয়েছে শো পিস, শপিং ব্যাগ, হ্যান্ড ব্যাগ, পর্দা, টেবিল ম্যাট, ফ্লোর ম্যাট, মেয়েদের গহনা, জুতাসহ নানা পণ্য। এ প্যাভিলিয়নে বেশ কিছু পাট পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান তাদের স্টল দিয়েছেন।পাট পণ্য পরিবেশ বান্ধব হওয়ায় ক্রেতাদের গ্রহণযোগ্যতা বেড়েছে। তবে বিক্রেতারা বলছেন, প্রচারণা কম থাকায় অনেকেই এসব পণ্য পণ্য সর্ম্পকে জানেন না।

এখানে কথা হয় কেটুকে অয়ার ইন্টারন্যাশনালের মালিক ইসরাত জাহানের সাথে। তিনি কান্ট্রিনিউজকে জানান, আমাদের এখানে নানা জাতের পাট পণ্য রয়েছে। আমরা ব্যাগ বেশি তৈরি করে থাকি। আমার এখানে ১২০ টাকা থেকে শুরু করে ৭০০ টাকা মূল্যের ব্যাগও রয়েছে।

ইসরাত জাহান বলেন, আমরা মেলায় এসেছি আমাদের পণ্যকে পরিচিত করার জন্য। আমার উৎপাদিত পণ্য বাহিরে তিনটি দেশে পাঠিয়ে থাকি।

জানা যায়, মেলায় ছোট বড় মিলে ৬০৫টি স্টল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। যার মধ্যে ৫৯টি প্রিমিয়ার প্যাভিলিয়ন, ১৯টি সাধারণ প্যাভিলিয়ন, ২৬টি বিদেশী প্যাভিলিয়ন, ৬টি সংরক্ষিত প্যাভিলিয়ন, ৩২ সাধারণ মিনি প্যাভেলিয়ন, ৩৬ প্রিমিয়ার মিনি প্যাভিলিয়ন, ৯টি বিদেশি মিনি প্যাভিলিয়ন, ৬টি সংরক্ষিত মিনি প্যাভেলিয়ন, ৬৮টি প্রিমিয়ার স্টল বিদেশী, ১৭টি প্রিমিয়ার স্টল, ২৯৫টি সাধারণ স্টল, ৩০টি ফুড স্টল এবং ২টি রেস্তোরাঁ। রয়েছে ৭০০টি গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা।

মেলা চলবে ছুটি এবং বিরতি ছাড়া সকাল ১০ থেকে রাত ১০ পর্যন্ত। মেলায় কেউ কোন পণ্য বা সেবা ক্রয়ে করে প্রতারিত হলে তারা অভিযোগ করতে পারবেন ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরে। মেলায় আগত দর্শনার্থীরা যাতে খুব সহজেই তাদের অভিযোগ দিতে পারেন সেজন্য মেলা প্রাঙ্গণেই রয়েছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের বিশেষ অফিস।