রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীসহ সর্বস্তরের শোক

রোববার সৈয়দ আশরাফের জানাজা


৪ জানুয়ারী ২০১৯ ১৬:৪২

আপডেট:
৪ জানুয়ারী ২০১৯ ২১:৫৪

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম আর নেই। ইনলিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

৩ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। প্রধানমন্ত্রীর গণমাধ্যম শাখা তাঁর মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে।

শনিবার বিকেল ৪টার একটি ফ্লাইটে ব্যাংকক থেকে আশরাফের মরদেহ আসবে দেশে। রোববার রাতে দাফন করা হবে বনানী কবরস্থানে। এর আগে জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় সকাল ১০টায় ১ম নামাজে জানাযা, এর পর তার মরদেহ হেলিকপ্টার যোগে নেয়া হবে জন্মস্থান কিশোরগঞ্জে। সেখানে দ্বিতীয় নামাজের জানাযা শেষে তার লাশ আবার ঢাকায় আনা হবে। বিকালে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে।

তাঁরমৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি অ্যাডভোকেট আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিদেশে চিকিৎসাধীন থেকেও সদস্য সমাপ্ত একাদশ সংসদ নির্বাচনে সৈয়দ আশরাফ কিশোরগঞ্জ-১ আসন থেকে নৌকা প্রতীকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ থেকে জমা দেওয়া, নির্বাচনী প্রচারণা সবই করেছেন তাঁর নেতাকর্মীরা।

২০১৭ সালের ২৩ অক্টোবর লন্ডনের একটি হাসপাতালে সৈয়দ আশরাফের স্ত্রী শিলা ইসলাম মারা যান। এতে অনেকটাই ভেঙে পড়েন আওয়ামী লীগের এই সাবেক সাধারণ সম্পাদক। এরপর নানা শারীরিক জটিলতায় চেপে বসে। পরে তাঁর ফুসফুসে ক্যান্সার ধরা পড়ে।

বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর সৈয়দ নজরুল ইসলামের ছেলে সৈয়দ আশরাফ। দুই মেয়াদে তিনি দলটির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য ছিলেন।

১৯৭৫ সালে জেলখানায় জাতীয় চার নেতা নিহত হওয়ার পর সৈয়দ আশরাফ যুক্তরাজ্যে চলে যান। পরে ১৯৯৬ সালে দেশে ফিরে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে কিশোরগঞ্জ-১ থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।  এরপর  ২০০১, ২০০৮ ও ২০১৪ সালেও সাংসদ হন।

এছাড়া ২০০৭ সালে জরুরি অবস্থা জারির পর শেখ হাসিনা কারাবন্দী হলে আওয়ামী লীগের যে কয়জন নেতা দলের হাল ধরেছিলেন তাদের অন্যতম ছিলেন সৈয়দ আশরাফ।

সৈয়দ আশরাফ ১৯৫২ সালে ময়মনসিংহ শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। স্বাধীনতার পর তিনি বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-প্রচার সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেন।