দেশীয় সিগারেটের বাজার ক্ষতিগ্রস্ত করার নানা কৌশলবিএটির বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ, তদন্তের দাবি


Country News

Published: 2017-10-08 19:18:41 BdST | Updated: 2018-11-15 10:15:33 BdST

বিএটির বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ, তদন্তের দাবি

বিভিন্ন দেশে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকোর (বিএটি) একের পর এক ঘুষ ও দুর্নীতির অভিযোগ ফাঁস হওয়ার পর বাংলাদেশে কোম্পানীর বিভিন্ন কার্যক্রম নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।
অভিযোগ উঠেছে বাজেটে রাজস্ব বা কর কম বসানোর জন্য সরকারের উচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তিদের তারা ব্যবহার করছে। এমনকি জাতীয় রাজম্ব বোর্ডের (্এনবিআর) সঙ্গে বাজেটর আগে তারা কয়েক দফা গোপন বৈঠকও করেছে বলে সংশ্লিষ্টরা অভিযোগ করেছেন। বিশেষ করে দামী সিগারেটের দাম ২০১৪-১৫ অর্থবছরে প্রতি প্যাকেটে ছিল ৯০ টাকা। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে এক লাফে সেই সিগারেটের দাম করা হয়েছে ৭০ টাকা। অভিযোগ করা হচ্ছে এই দাম কমানোর পেছনে বিএটি সরকারি কর্তাদের ব্যবহার করেছেন। এছাড়াও তাদের বিরুদ্ধে তামাক নিয়ন্ত্রন আইন প্রণয়নে প্রভাব খাটিয়ে সিগারেটের প্যাকেটে সচিত্র সর্তকবানী প্রকাশে বিলম্বের অভিযোগ রয়েছে।
এছাড়াও বিড়ি শিল্প ধ্বংসের পাশাপাশি দেশীয় সিগারেটের বাজারকে ক্ষতিগ্রস্ত করার জন্য নানাবিধ কৌশল অবলম্বন করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে দেশীয় কুটির শিল্প ধ্বংস করে তার বাজার দখলে নিতে অর্থমন্ত্রীকে প্রভাবিত করার অভিযোগ উঠেছে। বিএটির চাপে গত কয়েক অর্থবছরে অর্থমন্ত্রী বিড়ির ওপরে অধিকহারে কর ধার্য করে বৈষম্যমূলক শুল্কনীতি প্রণয়ন করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। অর্থমন্ত্রী দামী সিগারেটের ওপর নামমাত্র শুল্ক ধার্য দেশের ঐতিহ্যবাহী কুটির শিল্প হিসেবে পরিচিত বিড়ি শিল্পকে সম্পূর্ণ অনিশ্চয়তার দিকে ঠেলে দিয়েছেন বলে এ শিল্পের সঙ্গে জড়িতরা অভিযোগ করেছেন।
গত ৩০ জুলাই দেশীয় সিগারেট কোম্পানীর মালিকদের সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি আবারও বিড়ি শিল্প বন্ধের ঘোষনা দিয়েছেন। সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে অর্থমন্ত্রী বলেন, সরকার পলিসি নিয়েছে, বিড়ি থাকবে না।
সংশ্লিষ্টরা মনে করেন বিদেশী সিগারেটের দাম ৯০ টাকা থেকে কমিয়ে ৭০ টাকা করা হয়েছে বিড়ির বাজারকে সিগারেটের হাতে তুলে দেয়ার জন্য। অন্যদিকে অত্যধিক শুল্কের কারণে বিড়ির দাম প্রতি প্যাকেট ৭.১০ টাকা বাড়িয়ে ১২.৫০ টাকা করা হয়েছে। যা নজিরবিহীন। সিগারেটের সঙ্গে অসম প্রতিযোগিতায় টিকতে না পেরে দেশের বহু বিড়ি কারখানা ইতোমধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে। এর ফলে লাখ লাখ শ্রমিক কর্মচারী বেকার হয়ে পড়েছেন।

6


অভিযোগ রয়েছে বিএটির বিরুদ্ধে যাতে সরকারের প্রভাবশালী মহলের কেউ কথা বলতে না পারেন সেজন্য তাদের নিকট আত্মীয়দের এই প্রতিষ্ঠানে খুঁজে খুঁজে চাকরি দেয়া হয়। সরকারের মন্ত্রী-সচিব ও প্রভাবশালী আমলাদের বিপুল সংখ্যক আত্মীয় স্বজন বর্তমানে বিএটিতে কর্মরত রয়েছেন বলে জানা গেছে।
প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, দেশী বিদেশী সিগারেটের দাম সমান করার জন্য বিএটি প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টাকে দিয়ে অর্থমন্ত্রীর কাছে চিঠি পাঠিয়েছেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রনালয় ও আইনমন্ত্রনালয়ের বিভিন্ন কর্তাব্যক্তিদের কাজে লাগিয়ে তারা বিভিন্ন আইন প্রণয়নে বাধা সৃষ্টি করার অভিযোগও রয়েছে।
বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, গত ২০০৯-২০১০ এবং ২০১২-২০১৩ এই চার অর্থবছরে বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠানটি ১ হাজার ৯২৪ কোটি টাকা ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে। সেই ফাঁকি দেয়া এই অর্থ যাতে পরিশোধ করতে না হয় সে জন্য ব্রিটিশ হাই কমিশনারকে দিয়ে তদবিরও শুরু করেছে প্রতিষ্ঠানটি। প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন দেশে তাদের প্রতিযোগিরা যাতে প্রভাব বিস্তার করতে না পারে সে জন্য তারা প্রায়ই ঘুষ ও দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে থাকে। এসব তথ্য ফাঁস করেছেন কোম্পানির সাবেক এক কর্মকর্তা। ওই কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বিএটি দুর্নীতি ও ঘুষকে তাদের ব্যবসা পরিচালনার ব্যয় হিসেবে দেখছে। বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে।
তামাক বিরোধীরা বলছে, বাংলাদেশের রাজস্ব নীতিতে প্রভাব ফেলতে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তিদের কাজে লাগায় বিএটি। অন্যদিকে ফাঁকি দেয়া রাজস্ব পরিশোধে তারা হাইকোর্টের রায়কেও পরোয়া করছে না।
জানা গেছে, বৃটেনের সিরিয়াস ফ্রড অফিসও প্রতিষ্ঠানটির দুর্নীতি অনুসন্ধান শুরু করেছে। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রে কোম্পানিটির বিরুদ্ধে ঘুষের অভিযোগ উঠেছে।
এ নিয়ে বিভিন্ন সময় ব্রিটিশসহ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গণমাধ্যমে একাধিক সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। ২০১৫ সালের শেষদিকে বিবিসি প্যানোরামা নামক একটি অনুষ্ঠানে বিএটির সাবেক কর্মকর্তা পল হপকিন্স দুর্নীতির কিছু তথ্য ফাঁস করেন।
তিনি ১৩ বছর ধরে বিএটির কেনিয়া অফিসে কাজ করেছেন। অনুষ্ঠানে হপকিন্স বলেন, বিএটি ঘুষ ও দুর্নীতিকে ব্যবসা চালানোর ব্যয় হিসেবে চালিয়ে দিচ্ছে।
তার কাজ ছিল ব্যবসায়িক প্রতিযোগীরা যাতে বড় হয়ে উঠতে না পারে, তার ব্যবস্থা করা। এ তামাক কোম্পানিটি রাজনীতিবিদ, আমলাদের ঘুষ দিয়ে যাচ্ছে এবং হপকিন্স নিজেই তার ব্যবস্থা করে দিতেন। আর এটাই তার চাকরি ছিল।
এরপর আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো প্রতিবেদন প্রকাশ শুরু করে। ওই সব প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ঘুষ দেয়ার মূল উদ্দেশ্য ছিল তামাকবিরোধী আইনগুলোয় বাধা সৃষ্টি করা। শুধু সরকারি কর্মকর্তা বা রাজনীতিবিদদের নয়, বরং আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোয়ও লবিংয়ের ব্যাপারে তাদের নামে অভিযোগ উঠেছে।
বুরুন্ডির একজন উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তাকে দেশটির টোব্যাকো বিলের খসড়া কপি সরবরাহের জন্য ঘুষ দেয়া হয়।
দ্য গার্ডিয়ান পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়, বিএটি আফ্রিকার প্রায় ৮টি দেশের সরকারকে বিভিন্ন সুবিধা দিতে চাপ দিচ্ছে। এর আগে ২০১৩ সালে সলোমন মুয়িতা নামে তাদের এক লবিস্টকে বিএটি ঘুষ দেয়ার অভিযোগে বরখাস্ত করে।
পরে মুয়িতা জানান, তিনি শুধু কোম্পানির আদেশ পালন করছেন এবং পরবর্তী সময়ে অবৈধ অপসারণের দায়ে কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা করেন।
দ্য ন্যাশনাল মিডিয়া অব কেনিয়া নামে একটি সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছিল, বিএটি কেনিয়ায় প্রতিদ্বন্দ্বী কোম্পানির ওপর নজরদারি রাখতে সরকারি কর্মকর্তাদের ঘুষ দিয়েছে। প্রতিদ্বন্দ্বী মাস্টারমাইন্ড নামের কোম্পানির ওপর নানাবিধ কর দাবি করার জন্য বিএটির কাছ থেকে রাজস্ব কর্মকর্তারা মোটা অঙ্কের ঘুষ নিয়েছে।
এমনকি প্রতিপক্ষের বোর্ড মিটিংয়ের তথ্য, মার্কেটিং প্ল্যান, প্রডাকশন প্রসেস ফাঁস করার জন্য বিএটি প্রতিপক্ষের উচ্চপদস্ত কর্মকর্তাদের নিয়োগের ব্যাপারে মাথা ঘামাত।

5

 

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশেও অনিয়ম ও দুর্নীতির আশ্রয় নিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ২০০৯-১০ থেকে ২০১২-১৩ অর্থবছর পর্যন্ত চার বছরে প্রতিষ্ঠানটি সঠিকভাবে রাজস্ব পরিশোধ না করে ১ হাজার ৯২৪ কোটি টাকা ভ্যাট ও সম্পূরক শুল্ক ফাঁকি দিয়েছে। ওই টাকা যাতে না দিতে হয়, সেজন্য হাইকোর্টে মামলা করেও হেরে যায় বিএটি। মামলায় হেরে কোম্পানিটির পক্ষে সমঝোতার চেষ্টায় নামেন ঢাকায় নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার অ্যালিসন ব্লেইক।
তিনি সম্প্রতি সরকারকে চিঠি দিয়ে বিএটিবিকে (ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো বাংলাদেশ) যাতে ওই টাকা দিতে না হয়, সে বিষয়ে আদালতের বাইরে সমঝোতার প্রস্তাব দিয়েছেন। এর আগে অ্যালিসন ব্লেইককে সামগ্রিক পরিস্থিতি তুলে ধরে চিঠি দেন বিএটিবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) শেহজাদ মুনিম।
এবারই প্রথম নয়, ২০১৫ সালে ব্লেইক পাকিস্তানে হাইকমিশনার থাকাকালীন টোব্যাকো কোম্পানির পক্ষ নিয়ে দেশটির অর্থ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বৈঠক করেন। যদিও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থায় (ডব্লিউএইচও) স্বাক্ষরকারী দেশ হিসেবে কোনো ব্রিটিশ কূটনীতিক তামাক কোম্পানির হয়ে প্রচারণা বা তদবির করতে পারেন না।
অ্যালিসন ব্লেইককে লেখা চিঠিতে বিএটিবির এমডি বলেন, এনবিআর যে ১ হাজার ৯২৪ কোটি টাকা দাবি করছে, তা কোম্পানিটির এক বছরের কর-পরবর্তী মুনাফার তিনগুণেরও বেশি।
বিষয়টি নিয়ে সরকারের উচ্চপর্যায়ের সব কর্মকর্তার সঙ্গেই যোগাযোগ হয়েছে। আলোচনাকালে তারা সবাই স্বীকার করেছেন যে এটি একটি হয়রানিমূলক ঘটনা। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হল, প্রশাসনিক প্রক্রিয়ায় বিএটিবি বিচার পেতে ব্যর্থ হয়।
এমনকি বিএটিবির মূল শেয়ারহোল্ডার ব্রিটিশ কোম্পানি রালি ইনভেস্টমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড বিষয়টি নিয়ে প্রয়োজনে বাংলাদেশ-যুক্তরাজ্য দ্বিপক্ষীয় বিনিয়োগ চুক্তির আওতায় ‘ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব আরবিট্রেশন’-এ মামলা দায়ের করবে বলে হুমকি দিয়েছে।
দ্য গার্ডিয়ান পত্রিকার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দুর্নীতিতে নিমজ্জিত প্রতিষ্ঠানটি আমেরিকায় কংগ্রেসম্যানদের চাপের মুখে রয়েছে। যার নেতৃত্ব দেন লয়েড ডগেট ও সিনেটর রিচার্ড ব্লুমেনথান। তারা বলছেন, বিএটি ফরেন করাপ্ট প্রাকটিসেস অ্যাক্ট এবং এন্টি ব্রাইবারি আইনের লঙ্ঘন করছে।
তামাক বিরোধী আন্দোলনের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছে এমন একটি গবেষনা প্রতিষ্ঠান জানিয়েছে, বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশেও বৃটিশ আমেরিকান কোম্পানি নানা ভাবে রাজস্বনীতিতে প্রভাব ফেলছে। এমনকি তামাক বিরোধী আইন প্রণয়নের ব্যাপারেও তারা সরাসরি হস্তক্ষেপ করে। বর্তমানে সরকারের প্রভাবশালী কিছু কার্যালয় ব্যবহার করে তারা এই কাজগুলো করে যাচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটি জানায়, এদিকে বাজেটে নির্ধারিত দামেও তারা সিগারেট বিক্রি করছে না। দেশী-বিদেশী সিগারেটের দাম সমান করতে তারা বিভিন্ন ব্যক্তির মাধ্যমে লবিং করছে। বিএটির এসব কার্যক্রমের তদন্তের দাবি উঠেছে বিভিন্ন তামাক বিরোধী প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত


প্রতিবারের ন্যায় এবারও ১ নভেম্বর শুরু হবে আয়কর মেলা। ২০০৮ সাল থেকে এ...

অর্থনীতি | 2017-10-12 19:41:25

দুই কোটি টাকার অধিক সম্পদশালীদের কাছ থেকে সারচার্জ নেওয়া যাবে বলে হাইক...

অর্থনীতি | 2017-11-23 10:39:29

দেশে পাঠানো প্রবাসী আয়ের পরিমাণ সেপ্টেম্বর মাসে কমেছে। এ সময় মোট ৮৫ কো...

অর্থনীতি | 2017-10-03 16:31:37

বিভিন্ন দেশে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকোর (বিএটি) একের পর এক ঘুষ ও দুর্ন...

অর্থনীতি | 2017-10-08 19:18:41

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে তৃতীয় ক্রেডিট লাইনের বাস্তবায়নে সাড়ে চার বিলিয়...

অর্থনীতি | 2017-10-04 11:43:44

রাজধানীতে চাল-আটা, শাক-সবজি, মাছ-মাংসসহ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়...

অর্থনীতি | 2017-10-07 20:19:30

পণ্য ক্রয়ের পর ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রমে ক্রেতাদের উদ্বুদ্ধ করতে...

অর্থনীতি | 2017-10-02 18:02:37

এবছর নিম্ন ও মধ্য আয়ের দেশগুলোর রেমিট্যান্স বৃদ্ধির পূর্বাভাস দিয়েছে ব...

অর্থনীতি | 2017-10-07 16:33:33